বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

সরকার গুটিকয় নাস্তিকদের মনোবাসনা অনুযায়ী শিক্ষানীতি প্রণয়নের অপরিণামদর্শি খেলায় মেতেছে: পীর সাহেব চরমোনাই

আইএবি নিউজ: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) বলেছেন, সংশোধিত সিলেবাস ও শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে নাস্তিক্যবাদী গোষ্ঠী নতুনভাবে চক্রান্ত শুরু করেছে। নাস্তিক্যবাদীদের যে কোন চক্রান্ত কঠোরহস্তে দমন করতে হবে। ৯২ ভাগ মুসলমানের চিন্তা চেতনা ভুলুন্ঠিত করে গুটিকয়েক নাস্তিক-মুরতাদদের মনোবাসনা অনুযায়ী শিক্ষানীতি প্রণয়ন করার অপরিণামদর্শি খেলায় মেতে উঠেছে।

তিনি বলেন, হিন্দু ধর্মের ছেলে মেয়েরা হিন্দু ধর্মীয় বিষয়াদী পড়বে, এতে কারো আপত্তি নেই। কিন্তু মুসলমান ছেলে মেয়েদের জন্য হিন্দু ধর্মীয় বিষয়াদী যেভাবে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে, তা কোন বিবেকবান মানুষ মেনে নিতে পারে না। বিষয়টি অবশ্যই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও উস্কানীমূলক। এই উস্কানীমূলক জঘন্য কাজ যারা করেছে ক্ষমতাসীনরা তাদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা না নিলে শুধু সরকারকেই নয়, গোটা জাতিকে এর মাশুল দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর গেন্ডারিয়াস্থ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় মাঠে ৩দিন ব্যাপী বিশাল ইসলামী মহাসম্মেলনের উদ্বোধণী বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

আরো বক্তব্য রাখেন উজানী মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহবুবে এলাহী, চট্টগ্রাম জিরি মাদরাসার মুহতামিম মুফতি মুহাম্মদ তৈয়ব, ফরিদাবাদ মাদরাসার মুহাদ্দিস মুফতি ইমাদুদ্দিন, আল্লামা আহমদ শফীর বিশিষ্ট খলিফা মুফতি ওমর ফারুক সন্ধিপী, কুরআন শিক্ষা বোর্ডের ঢাকা মহানগর সভাপতি মাওলানা হাবিবুল্লাহ আনছারী, মুজাহিদ কমিটি ঢাকা বিভাগীয় ছদর মাওলানা খলিলুর রহমান। এ সময় দেশের বরেণ্য উলামায়ে কেরামগণ উপস্থিত ছিলেন।

পীর সাহেব চরমোনই বলেন, নতুন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগে রাষ্ট্রপতির গঠিত সার্চ কমিটিকে স্বাধীন ও নিরপেক্ষভাবে কাজ করার সুযোগ দিতে হবে। সরকারের কুটকৌশল বাস্তবায়নে তারা যদি বিতর্কিত ব্যক্তিদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠনে কাজ করে তাহলে সরকারের মতো সার্চ কমিটির সদস্যরাও গণধিকৃত হবেন। বিগত নির্বাচন কমিশন একের পর এক অস্বচ্ছ ও বিতর্কিত নির্বাচন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সুষ্ঠু নির্বাচনব্যবস্থাকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে। ভবিষ্যতে একই অবস্থা বহাল থাকলে দেশে রাজনীতি বলে কিছু থাকবে না।