বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৫

ঈদের পূর্ব রাত ও ঈদের দিনের আমল

এবাদতের সুন্দর সূচনা এবং যথার্থ সমাপ্তির মাধ্যমে ভালো ফলাফল আশা করা যায়।
রোজার চাঁদ দেখে যে এবাদতের সূচনা হয়েছিল, শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখে সেই এবাদতের সমাপ্তি
ঘটবে। রোজার মাসব্যাপী এবাদতের যথার্থ সমাপ্তি হয় ঈদের পূর্ব রাতের আমলের মাধ্যমে।

আবু ওমামা (রা.) সূত্রে বর্ণিত, রসুল
(সা.) বলেন, "যে ব্যক্তি দুই ঈদের
রাতে এবাদতে ডুবে থাকবে,
যেদিন সবার অন্তর মরে মরুভূমি হয়ে
যাবে, সেদিন তার অন্তর সজীব ও
সতেজ থাকবে (ইবনে মাজা)।"

অন্যত্র মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.)
সূত্রে বর্ণিত, রসুল (সা.) বলেন, যে
ব্যক্তি পাঁচটি রাত জেগে এবাদত
করবে, জান্নাত তার জন্য অবধারিত।
রাতগুলো হলো যিলহজ মাসের ৮ ও
৯ তারিখের রাত, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার রাত, শাবান মাসের ১৫ তারিখের রাত (সূত্র: আত তারগিব ওয়াত তাহরিব)।

শায়খুল হাদিস জাকারিয়া (রা.)
বলেন, অন্তর সজীব থাকার অর্থ হলো, তাদের হৃদয় পাপে আচ্ছাদিত হবে না। এমনকি কেয়ামত সংঘটিত
হওয়ার পূর্ব মুহূর্তেও সিঙ্গায় ফুঁক
দেওয়ার দিনেও তারা সজ্ঞান
থাকবে (সূত্র: ফাযায়েলে রমজান)।

রাতজাগা এবাদতে ঈদরাতের
সমাপ্তির পরই সকালে শুরু হয় ঈদের
নামাজ। এ দিনের করণীয় সম্পর্কে
আল্লাহ তায়ালা বলেন, "তোমরা
আল্লাহর উদ্দেশে তাকবির উচ্চারণ
কর। কেননা, তিনি তোমাদের
হেদায়েত দান করেছেন (সুরা
বাকারা-১৮৪)।"

এছাড়া মুসনাদে
আহমদ ও বায়হাকি শরিফের বিভিন্ন
হাদিসে ঈদের দিনে বেশকটি
করণীয়ের কথা উল্লেখ আছে।
প্রত্যুষে ঘুম থেকে ওঠা, ২. মিসওয়াক
করা, ৩. নামাজপূর্ব গোসল, ৪. সুগন্ধি
ব্যবহার, ৫. চোখে সুরমা লাগানো
৬. পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পোশাক
পরিধান ৭. আগেভাগে ঈদগাহে গমন
৮. অসহায়দের দান ৯. নামাজপূর্ব
মিষ্টিদ্রব্য গ্রহণ ১০. নামাজপূর্ব সদকা
আদায় ১১. পায়ে হেঁটে ঈদগাহে
যাওয়া ১২. এক পথে যাওয়া ও ভিন্ন
পথে ফেরা ১৩. ‘আল্লাহু আকবার,
আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা
ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার,
আল্লাহু আকবার, ওয়ালিল্লাহিল
হামদ’ বেশি বেশি পড়া।

Collected & Edited

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০১৫

দুঃস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে ইসলামী আন্দোলনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ


ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী বলেছেন, দেশে ইসলামী অনুশাসন নেই বলে মানুষ অবহেলিত, শোষিত-বঞ্চিত। একশ্রেণির মানুষ উচ্চাভিলাষী জীবনযাপন করে অন্যদিকে দুঃস্থ ও অসহায় মানুষ অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করছে। তিনি বলেন, দেশে যাকাত ভিত্তিক অর্থ ব্যবস্থা চালু না থাকায় যাকাত আনতে যেয়ে প্রতি বছর দুর্ঘটনায় পতিত হয়ে মানুষ মারা যায়। ইসলামের বিধান হলো গরীব, দুঃখী ওঅসহায়দের কাছে গিয়ে যাকাত দিয়ে আসা।
সোমবার (১৩ জুলাই) বেলা ১১টায় রাজধানীর কদমতলী থানার ৮নং ওয়ার্ড মোহাম্মদবাগ শাখার উদ্যোগে দুঃস্থ ও গরীবদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণকালে তিনি এসব কথা বলেন।
ওয়ার্ড সভাপতি আলহাজ্ব মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারি মুহাম্মদ ফরহাদ বেপারীর পরিচালনায় ঈদ সামগ্রী বিতরণ পূর্ব আলোচনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- সংগঠনের ঢাকা মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, কদমতলী থানা সভাপতি মাওলানা শাহজাহান নেজামী, মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, হাফেজ ছিদ্দিকুল্লাহসহ থানা ও ওয়ার্ড নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

রবিবার, ১২ জুলাই, ২০১৫

আবাল কি গাছে ধরে নাকি গাধার পেটে জন্ম নেয় ??


বাংলাদেশ জামায়েত ইসলাম এর মুখ পাত্র ‘দৈনিক সংগ্রাম  পত্রিকার নিউজ  দেখে মনে পড়ে যায় সেই
ইসলামী ৭১ সংগ্রাম হতে আজ পযর্ন্ত তাদের গাদ্দারী আর চতুরতার কথা !
ছবিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর নায়েবে আমীর মধ্যপ্রাচ্য সফর শেষে  দেশে ফিরে আসায়
কেন্দ্রীয় কার্যালয় পুরানা পল্টন অফিসে দলীয় ভাবে সংর্বধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ।
প্রমান দেখুন: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর ওয়েব সাইট ঘুরে আসুন : http://www.islamiandolanbd.org
আজকের (১২ জুলাই) পত্রিকা দেখুন কি ‍সুন্দর করে কুরআন বিতরনীর কথা লিখেছে !

শনিবার, ১১ জুলাই, ২০১৫

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ সফর শেষে মুফতী ফয়জুল করীম শায়েখে চরমোনাই দেশে ফিরেছেন




ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ ফয়জুল করীম (শায়েখে চরমোনাই) মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ সফর ও সৌদী সরকারের মেহমান হিসেবে পবিত্র ওমরাহ পালন শেষে শনিবার (১১ জুলাই) বেলা ২.৪৫ মি. হযরত শাহজালাল রহ. আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছলে হাজার হাজার জনতা তাকে উজ্ঞ সংবর্ধনা জানান। এ সময় বিমানবন্দর ও আশপাশের রাস্তাঘাটে এলাকায় লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়।

আল-কুরআন কিভাবে পড়বো ও বুঝবো -ইবুক

quran-kivabe-porbo-o-bujhbo.pdf - 2.4 MB

বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই, ২০১৫

রমজানের শিক্ষা কাজে লাগিয়ে মুরতাদ লতিফ ও গাধা চৌধুরীদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে -ইসলামী আন্দোলন ঢাকা মহানগর


ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর সেক্রেটারী মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম বলেছেন, রমজানের শিক্ষা নাই বলেই আমাদের সমাজে বেশি বিশৃঙ্খলা। মারামারি, কাটিকাটি, খুন রাহাজানি মারাত্মক আকার ধারণ করছে। ভারসাম্যপূর্ণ সমাজ গঠনে সিয়ামের গুরুত্ব অনেক বেশি। তাই সকলকে তাকওয়াভিত্তিক সমাজ গঠেনে এগিয়ে আসতে হবে। রমজানের সিয়াম সাধনা করে নাস্তিকু-মুরতাদ ও বেঈমানদের বিরুদ্ধে ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। মুরতাদ লতিফ ও গাধা চৌধুরীরা দেশকে অশান্ত করে তুলছে। তাদেরকে শাস্তি পেতেই হবে।
১৯ রমজান মঙ্গলবার বিকেলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খিলগাঁও থানা শাখার উদ্যোগে খিলগাঁও মডেল হাইস্কুল মিলনায়তে রমজানের তাৎপর্য ও গুরুত্ব শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। থানা সভাপতি আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার আবদুল আজিজের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারী ডা. লুৎফুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রচার সম্পাদক মাওলানা এইচ এম সাইফুল ইসলাম, শ্রমিক নেতা শাহআলম মানিক, হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আলী ঢালী, মাস্টার জসিম উদ্দিন, মু. কামাল হুসাইন প্রমুখ।

মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম দাঃবাঃ এর মুক্তিতে সৌদি বিশিষ্ট নাগরিকদের মাঝেও আবেগ ও অশ্রু মিশ্রিত আনন্দ বিরাজ করছে।

মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম দাঃবাঃ এর মুক্তিতে সৌদি বিশিষ্ট নাগরিকদের মাঝেও আবেগ ও অশ্রু মিশ্রিত আনন্দ বিরাজ করছে।
হুযুররের সাক্ষাৎএ সৌদি সরকারের অতিথি হিসেবে হুযুরের অবস্থানরত পাঁচ তারকা হোটেলে লবিতে আসছেন সৌদি নাগরিকরা


মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম সাহেব সৌদি আরবের গোয়েন্দা পুলিশ হেফাজতে
থাককালীন তাকে মুক্ত করার জন্য ব্যাপক
প্রচেষ্টা চালিয়েছিলেন সৌদি নাগরিক ফাহাদ বিন আব্দুল আজিজ। আজকে হুজুরের মুক্তির সংবাদ শুনে তিনি ছুটে এসেছিলেন হোটেল লবিতে। তার আবেগ মিশ্রিত কথা অনেককেই অশ্রুসজলকরে তোলে।


ছবিতে যাকে দেখতে পাচ্ছেন তিনি একজন আছলী সউদী। মুফতি সাহেব হুজুরকে কেন্দ্র করে ঘটে যাওয়া অনাকাঙ্খিত ঘটনা আমেলের (কর্মচারী) মুখে শুনেছেন।
একজন হক্কানী আলেমের প্রতি ষড়যন্ত্রকারীদের বিষেদাগার সহজে মেনে
নিতে পারেননি। তাই হুজুরের বন্দি অবস্থায় চেষ্টা করেছেন সাধ্যানুযায়ী সহায়তা করার।
জীবনে কখনো সাক্ষাৎ না হলেও হুজুরের
মুক্তির সংবাদ শুনে হোটেল লবিতে ছুটে
এসেছেন তার সাথে সাক্ষাত করতে। সাথে নিয়ে এসেছেন তিন সন্তানকে। তিনি যখন এসেছেন হুজুর তখন ঘুমে। হুজুর এতটাই
বেশি ক্লান্ত যে তাকে ডেকে জাগিয়ে তোলা
সম্ভব হয়নি।
সমস্যার কথা এই সৌদিকে জানানো হলে তিনি বললেন "সমস্যা নেই আমি অপেক্ষা করবো"।
সেই থেকে তিনি বসে আছেন প্রায় এক ঘন্টা অতিক্রম হতে চললো। বেচারা নাছোড় বান্দা, সাক্ষাৎ না করে যাবেন ই না।
কপি সূত্র :- মোহতরম Neser Uddin ভাই।

মঙ্গলবার, ৭ জুলাই, ২০১৫

নাস্তিক-মুরতাদদের আস্ফালন সহ্য করা হবে না -পীর সাহেব চরমোনাই


ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) বলেন, দেশ, জাতি ও মানবতা আজ শান্তির জন্য হাহাকার করছে। পবিত্র রমজান মাস আমাদের-কে তাকওয়া অর্জনের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ সমাজগঠনের শিক্ষাই দেয়। রমজান মাসের রোজা আমাদের-কে যেমনি ব্যক্তিগত জীবনে তাকওয়া অর্জনের মিক্ষা দেয় তেমনি সমাজ জীবনেও তাকওয়া অর্জনের শিক্ষা দেয়।
তিনি বলেন, একের পর এক ইসলাম, নবী ও ধর্মীয় শিক্ষা এমনকি আল্লাহ-কে নিয়েও কটুক্তি করছে। মুরতাদ লতিফ সিদ্দিকী-কে জামিন দেয়ার ফলেই আবদুল গাফফার চৌধুরী আল্লাহর নাম নিয়ে কটুক্তি করার সাহস পেয়েছে। তাই এ সকল মুরতাদদের সর্বোচ্চ শাস্তির আইন পাশ করে অনতিবিলম্বে তা কার্যকর করতে হবে। অন্যথায় উদ্ভুত পরিস্থিতির জন্য ক্ষমতাসীন সরকারকেই তার দায়ভার গ্রহণ করতে হবে।
১৯ রমজান মঙ্গলবার (৭ জুলাই’১৫) ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল ইসলাম আল-আমীন এর সভাপতিত্বে আয়োজিত সূখী, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে মাহে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন সাহাবাদের অনুসারী একটি সংগঠন। সাহাবায়ে কিরাম এ রমজান মাসে বদরের যুদ্ধে তাগুতি শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। তাই সাহাবায়ে কিরামের নমুনায় ঈমানী বলে বলিয়ান হয়ে খোদাদ্রোহী শক্তির মুলোৎপাটনে তারা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, সহকারী মহাসচিব আলহাজ্ব আমীনুল ইসলাম।
আরো বক্তব্য রাখেন- দৈনিক ইনকিলাব এর সহকারী সম্পাদক মাওলানা ওবায়দুর রহমান খান নদভী, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররম এর ইমাম মাওলানা মহিব্বুল্লাহিল বাকী।
বন্ধুপ্রতীম ছাত্র সংগঠনগুলোর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল, ইসলামী ছাত্র খেলাফত, ইসলামী ছাত্র মজলিশ, মুসলিম ছাত্রলীগ, জাগপা ছাত্রলীগ ও বাংলাদেশ আঞ্জুমানে তালামিযে ইসলামী এর কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন- ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন এর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি জিএম রুহুল আমীন, সেক্রেটারি জেনারেল শেখ ফজলুল করীম মারুফ, জয়েন্ট সেক্রেটারি জেনারেল শেখ মুহাম্মাদ নূর-উন-নাবী, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মাদ আজিজুল হক।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি
তারিখ: ০৭/০৭/২০১৫ ইং

রবিবার, ৫ জুলাই, ২০১৫

রমজানের শিক্ষা না থাকায় অপরাজনীতির চর্চা চলছে; শান্তির জন্য তাকওয়াপূর্ণ সমাজ অপরিহার্য -পীর সাহেব চরমোনাই


ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই’র আমন্ত্রণে রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক, শিক্ষাবিদ, উলামা-মাশায়েখ ও ব্যবসায়ীদের সম্মানে রাজধানীর কাকরাইলস্থ রাজমনি ঈসা খাঁ’র ভিআইপি হলে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মাহফিলে আগত জাতীয় নেতৃবৃন্দের সাথে পীর সাহেব চরমোনাই কুশল বিনিময় করেন। পীর সাহেব চরমোনাই তাঁর শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেছেন, দেশ, ইসলাম ও মানবতা আজ শান্তির জন্য হাহাকার করছে। পবিত্র রমজান মাস আমাদেরকে তাকওয়ার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনের শিক্ষাই দেয়। রমজান মাসের রোযা যেমনি আমাদেরকে ব্যক্তি জীবনে সংযম ও তাকওয়া অর্জনের শিক্ষা দেয় তেমনি সমাজ জীবনে এর চর্চা করতে পারলে জাগতিক সব সমস্যারও সমাধান সম্ভব। তিনি বলেন, কুরআনকে শুধু পড়লেই চলবে না, এর অর্থ বুঝে বাস্তব জীবনে এর নির্দেশনাকে কাজে লাগাতে হবে।
পীর সাহেব বলেন, দেশে অপরাজনীতি চলছে। রাজনীতির নামে ধান্ধাবাজি, দলবাজী ও ক্ষমতালোভীরা রমজানের শিক্ষাকে ম্লান করে দিচ্ছে। রমজানের শিক্ষা না থাকায় ক্ষমতালোভীরা ক্ষমতাকেন্দ্রিক কাজ করছে। এমনকি এতে কতিপয় আলেমরাও শায় দিচ্ছে, শুধু রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্য। এই অপরাজনীতির অবসান হওয়া প্রয়োজন। ক্ষমতার জন্য নাস্তিক-মুরতাদদের আস্ফালন চলছে। আমাদের প্রিয় নবী (সা.), পবিত্র হজ্ব নিয়ে কটুক্তি করার পরও লতিফ সিদ্দিকীকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এতে করে সরকারই জনগণকে ঈমান রক্ষার পরিস্থিতিতে ফেলেছে। আর এর দায়দায়িত্ব সরকারের কাধেই যাবে। তিনি মুরতাদ লতিফসহ ধর্ম অবমাননাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির আইন পাশের দাবি জানান। লতিফ সিদ্দিকীর ক্ষমার কোনো সুযোগ ইসলামে নেই। তাকে সর্বোচ্চ শাস্তি পেতেই হবে।
১৬ রমাজান শনিবার (৪ জুলাই) বিকাল ৫টায় রাজধানীর কাকরাইলস্থ রাজমনি ঈসা খাঁ’র ভিআইপি হলে দেশের বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, শীর্ষস্থানীয় ওলামা-মাশায়েখ ও সূধীবৃন্দের সাথে শুভেচ্ছা বক্তব্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই এসব কথা বলেন।
বক্তব্য রাখেন সংগঠনের প্রেসিডিয়াস সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, নগর সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিন, বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক চীফ হুইপ শহিদুল হক জামাল, সাবেক এমপি মেজর অব. আখতারুজ্জামান, সাবেক এমপি মু. আব্দুল্লাহ, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের নেতা মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, দৈনিক নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন, দৈনিক ইনকিলাবের সহকারী সম্পাদক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, বায়তুল মোকাররম মসজিদের সিনিয়র ইমাম মাওলানা মুহিব্বুল্লাহিল বাকী নদভী, সাংবাদিক নেতা সৈয়দ আবদাল আহমদ।
সংগঠনের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুসলিম লীগের আতিকুর রহমান, খেলাফত নেতা মাওলানা আবু তাহের, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা নেয়ামতুল্লাহ আল-ফরিদী, সহকারী মহাসচিব মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম আতিকুর রহমান, প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, ফরিদাবাদ মাদরাসা প্রধান মুফতী মাওলানা মুতিউর রহমান, মুফতী বশিরউল্লাহ, মাওলানা লোকমান হোসাইন জাফরী, মাওলানা দেলওয়ার হোসাইন সাকী, আলহাজ্ব হারুনুর রশীদ, ইঞ্জিনিয়ার শরীফুল ইসলাম তালুকদার, মুফতী হেমায়েতুল্লাহ, মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ, এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন, ইসলামী আইনজীবী পরিষদ নেতা এ্যাডভোকেট শেখ আতিয়ার রহমান, এ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত, এম বরকতুল্লাহ লতীফ, মুফতী কেফায়েতুল্লাহ কাশফী, আলহাজ্ব আব্দুর রহমান, এশিয়ান ইউনিভার্সিটির প্রফেসর মুহিব্বুল্লাহ, তানজীমুল উম্মাহর চেয়ারম্যান হাবীবুল্লাহ মু. ইকবাল প্রমুখ।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি
তারিখ: ০৪/০৭/২০১৫ ইং

The Battle of Badr :: 313 vs 1000


The Battle of Badr :: 313 vs 1000 ᴴᴰ - [Epic Full Video] :: Featuring Mufti Menk & Sheikh Shady - YouTube
https://www.youtube.com/watch?v=TRp_r-cgL_Q

শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০১৫

ফের উত্তপ্ত, বাংলার রাজপথ। টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া । দাবি একটাই!! স্বঘোষিত নাস্তিক লতিফ সিদ্দিকীর ফাঁসি চাই।


শুক্রবার (৩ জুলাই) লতিফ সিদ্দিকীর ফাঁসির দাবিতে বাদ জুমআ সারা দেশের প্রতিটি প্রান্তরে ফুঁসে উঠেছে তাওহীদি জনতা । 
ইসলামের মৌলিক রুকন হজ্জ্ব , মহানবী সা: ও তাবলীগ কে কটুক্তিকারী স্বঘোষিত নাস্তিক ও মুরতাদ জনমানুষের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, সহিংসতা ও অরাজকতা সৃষ্টির উস্কানী দাতা, লতিফ সিদ্দিকিকে জামিনে মুক্তি দেওয়ার প্রতিবাদে এবং ফাসি দাবিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ও ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন কেন্দ্র ঘোষিত শুক্রবার (৩ জুলাই) সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দেয় ।
ছবিতে সারাদেশের বিক্ষোভ মিছিলের খন্ড চিত্র