রবিবার, ১৯ মার্চ, ২০১৭

পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন যারা মেনে নিতে পারে না তারা ইসলামের শত্রু; তাদের চক্রান্ত প্রতিহত করা হবে: পীর সাহেব চরমোনাই

আইএবি নিউজ: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) ইসলামী জনতার দাবির প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে চলতি শিক্ষা বর্ষের জন্যে মুদ্রিত পাঠ্যপুস্তকে মুসলিম লেখক ও কবি-সাহিত্যিকদের প্রবন্ধ ও গল্প কবিতার আংশিক পুনঃপ্রতিস্থাপনকে সময়োপযোগী চিন্তার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি বলেন, এটা যারা মেনে নিতে পারে না তারা ইসলাম ও মানবতার শত্রু। এই পরিবর্তনের বিরুদ্ধে ইসলামবিরোধী মহলটির সমালোচনা ধৃস্টতার পরিচায়ক। এতে তাদের এদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের বিশ্বাস ও মূল্যবোধ বিদ্বেষী মনোভাবেরই নির্লজ্জ্ব বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে।

তিনি বলেন, দেশের জনগণের লালিত ও ধারণকৃত চিন্তাা-চেতনা ও চিরায়ত মূল্যবোধের সম্পূর্ণ পরিপন্থী এবং অসামঞ্জস্যপূর্ণ নাস্তিক্যবাদী চিন্তা-চেতনা সম্বলিত সিলেবাস সুদীর্ঘকাল ধরে প্রচলিত শিক্ষার ধারা বৈশিষ্টহীনতায় রুপান্তরিত হয়ে উঠেছিল।

এক বিবৃতিতে শায়েখ চরমোনাই বলেন, বিশ্বায়নবাদীদের ক্রীড়নক এদেশের এক শ্রেণীর মানুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের শিক্ষা-সংস্কৃতির বদলে বাংলাদেশে বিশ্বায়নের শিক্ষা-সংস্কৃতি চালু করার নীতি কার্যকর করার অপচেস্টায় মেতে উঠেছে। বাংলাদেশের  শিক্ষা ব্যবস্থাকে তারা তাদের ইচ্ছা ও পরিকল্পনা অনুযায়ী ঢেলে সাজানোর চক্রান্তে লিপ্ত।

তিনি বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে বাংলাদেশী জাতি সত্তার মর্মমূলে রয়েছে ধর্ম। এ জন্যে প্রয়োজন ধর্মভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থা। সারা পৃথিবীতে মানুষ নিজের ধর্মীয় পরিচয় দিতে কুণ্ঠাবোধ করে না। কিন্তু আমরা আমাদের ধর্মের পরিচয় দিতে লজ্জিত হই। আমাদের বাংলাদেশিত্ব ও ধর্মই আমাদের জাতিসত্তার অস্তিত্বের শর্ত। আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের গ্যারান্টি। কেননা ধর্ম ছাড়া জাতিসত্তার সবল ও সফল অস্তিত্ব নির্মাণ সম্ভব নয়। আমাদের স্বাধীন রাষ্ট্রীয় ভূখন্ডভিত্তিক বাংলাদেশী চেতনা এবং জীবনভিত্তিক শিক্ষা ও দৃষ্টিভঙ্গী ৯০ভাগ মানবমন্ডলীর অস্তিত্বের ভিত্তি-শর্ত তৈরি করেছে। আমাদের অস্তিত্ব, স্বাধীন মর্যাদা, আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার, ঐক্য, শক্তি, সৃজনশীলতা, শৃংখলা, কর্মপন্থা, সমষ্টি উদ্যোগ, সামগ্রিক কল্যাণ এবং ভবিষ্যৎ সবকিছু ধর্মীয় শিক্ষা-সংস্কৃতি ও ইসলাম ধর্মভিত্তিক জাতিসত্তার পরিপূর্ণ বিকাশের ওপরই নির্ভরশীল।  বাংলাদেশে জাতিসত্তা নির্মাণে ধর্ম  শিক্ষাকে ভিত্তি শর্ত হিসেবে আকড়ে ধরতে হবে। এসব চক্রান্ত প্রতিহত করা হবে।