সোমবার, ৯ জানুয়ারী, ২০১৭

ইসলাম রাষ্ট্রীয় আদর্শ হিসেবেও ন্যায়-ইনসাফ নিশ্চিত করে : মুফতী ফয়জুল করীম

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম (পীরে কামেল চরমোনাই) বলেছেন, ইসলাম একটি পরিপূর্ণ ও মানুষের স্বভাববান্ধব জীবনব্যবস্থা। ইসলামে ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রসহ বিশ্বমানবতার চারিত্রিক, অবকাঠামো ও প্রাযুক্তিক উন্নয়নের দিক নির্দেশনা রয়েছে। ইসলাম রাষ্ট্রীয় আদর্শ হিসেবেও ন্যায়-ইনসাফ ও ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষের স্বাধীনতা, নিরাপত্তা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করে। সমাজে ইসলামী জীবনাদর্শের বাস্তব অনুসরণ করা হলে সমাজ থেকে সকল পাপাচার, অন্যায় অসত্য, দুর্নীতি দূর হয়ে একটি পরিশুদ্ধ মানবদরদি ও কল্যাণকর রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হবে।

সমাজ ও মানবতা যখন পাপাচার ও গোনাহের অন্ধকারে ডুবে যায় তখনই যুগে যুগে নবী-রাসূলদের পাঠিয়ে আল্লাহ মানুষদের হেদায়ত ও আলোর পথ দেখিয়েছেন। শেষ যুগে মহানবী আকায়ে নামদার হযরত মুহাম্মদ মুস্তাফা সা.-এর পর আর কোনো নবী আগমন করবেন না। তাই মহানবী সা.-এর অবর্তমানে তাঁর পবিত্র দায়িত্ব ও উত্তরসূরির ভূমিকা রাখছেন হক্কানি পীর-মাশায়েখ ও ওলামায়ে কেরাম।

তিনি আজ ৯ জানুয়ারী সোমবার বাদ মাগরিব সুনামগঞ্জ জেলা মুজাহিদ কমিটির উদ্যোগে  সুনামগঞ্জ সদর চৌমুহনী বাজার সংলগ্ন মাঠ প্রাঙ্গণে আয়োজিত বার্ষিক ওয়াজ মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন

মাওলানা ওসমান গণির সভাপতিত্বে ওয়াজ মাহফিলে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কোরআন শিক্ষা বোর্ডের সহকারী প্রশিক্ষক মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, মাওলানা নূরুল করিম বেলালী, মাওলানা রেদওয়ানুল হক রাজু, মাওলানা আব্দুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ।