সোমবার, ২৭ মার্চ, ২০১৭

দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা প্রতিটি নাগরিকের নৈতিক দায়িত্ব: অধ্যক্ষ শেখ ফজলে বারী মাসউদ

স্টাফ রিপোর্টার : স্বাধীনতা আল্লাহ তা’আলার মহা নিয়ামত। এ স্বাধীনতা অক্ষুন্ন রাখা দেশের প্রতিটি নাগরিকের ঈমানী ও নৈতিক দায়িত্ব। কারণ মানুষ জন্মগতভাবে স্বাধীন। সে কেবল আল্লাহর গোলামী করবে। আর কারো নয়। তাই স্বাধীনতা বিপন্ন হলে আল্লাহর দাসত্বও সঠিকভাবে করা যায় না। ফলে ইসলাম স্বাধীনতার প্রতি যথেষ্ট গুরুত্ব প্রদান করেছে।

গত ২৬ মার্চ’১৭ইং রবিবার বিকাল ৪টায় মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের উদ্যোগে পল্টনস্থ নগর কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দো’আ মাহফিলে নগর উত্তরের সভাপতি অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ সভাপতির বক্তব্যে উপরোকক্ত কথা বলেন।

উক্ত সভায় অন্যান্যদের মাধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আনোয়ার হোসাইন, সেক্রেটারী মোশাররফ হোসেন, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওলানা আরিফুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান, মুফতী মাছউদুর রহমান, একে এম নাজমুল হক, হাফেজ নিজাম উদ্দিন, প্রকৌশলী গিয়াস উদ্দিন প্রমুখ।

তিনি আরো বলেন, বহু ত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের এই স্বাধীনতাকে অর্থবহ করে তুলতে হবে। এই স্বাধীনতাকে ভুলণ্ঠিত হতে দেয়া যায় না। কিন্তু পরিতাপের বিষয় বর্তমান অবস্থা দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে একটি গোষ্ঠি এ দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব বিকিয়ে দিতে চায়। জঙ্গী তৎপরতা আর অরজকতা সৃষ্টি করে যারা দেশের মধ্যে বিশৃংখলা সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে, আর সেক্ষেত্রে ইসলামের নাম ব্যবহার করছে, তারা যে ইসলাম, দেশ-জাতি ও মানবাতার শত্রু এতে কোন সন্দেহ নেই। তাদের এই অপকর্ম কোনো দেশপ্রেমিক ধর্মপরায়ণ নাগরিক আদৌ মেনে নিতে পারে না। এমনিভাবে দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব বিকিয়ে দিয়ে কোনো দেশের সাথে যে কোনো ধরণের চুক্তি দেশপ্রেমিক জনগণ মানবে না এবং মানতে পারে না। সুতরাং এধরণের কোন চুক্তি করা হলে চুক্তিকারীদের চরম মূল্য দিতে হবে। অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বলেন, বিপথগামী জঙ্গীরা ইসলাম ও দেশের শত্রু। মহান স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বেরও শত্রু তারা। তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলতে হবে। আসুন আমরা হাতে হাত রেখে ঐক্যবদ্ধভাবে সামনে এগিয়ে যাই।