বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ, ২০১৭

বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশি বাধা; গ্রীক দেবীর মূর্তি অপসারণ করতেই হবে: ইশা ছাত্র আন্দোলন

আইএবি নিউজ: মিছিলে বাধা দিয়ে সরকার আমাদের প্রতিবাদী কণ্ঠ রোধ করার চেষ্টা করছে। সরকারের যেকোন গণবিরোধী কাজের প্রতিবাদ করা আমাদের নাগরিক অধিকার। কিন্তু আজকের বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশ বাধা দিয়ে আমাদের সেই অধিকার কেড়ে নিয়েছে। যার পরিণাম কখনো শুভ হবে না।



বৃহস্পতিবার (৯ মার্চ’১৭) বিকাল ৩টায় দেশের সর্বোচ্চ বিচারালয় সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রীক দেবীর মূর্তি অপসারণের দাবি ও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইটে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি জি.এম. রুহুল আমীন-এর সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী উপর্যুক্ত কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে অন্যতম সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশ। এদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সাথে ইসলাম অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। ইসলামে মূর্তি কিংবা যেকোন প্রাণির ভাস্কর্য নিষিদ্ধ। কিন্তু এদেশের হাতে গোনা কয়েকটি নাস্তিকের চক্রান্তে সর্বোচ্চ বিচারালয় সুপ্রিমকোর্ট এর সামনে গ্রীক দেবীর মূর্তি স্থাপন করার মত দুঃসাহস সরকার দেখাচ্ছে। ইসলাম ও দেশ বিরোধী এই চক্রান্ত কোনোভাবেই সহ্য করা হবে না। সারাদেশে একযোগে মূর্তি অপসারণের দাবি উঠেছে। অতএব সরকারের উচিত দেশের সর্বোচ্চ বিচারালয় সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গন থেকে গ্রীক দেবীর মূর্তি দ্রুত অপসারণ করা। যদি মূর্তি অপসারণ না করা হয় তবে সারাদেশে আন্দোলনের দাবানল ছড়িয়ে পড়বে। আর উদ্ভূত পরিস্থিতির দায়ভার সরকারকেই নিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, গ্রীক দেবীর মূর্তি স্থাপনের মাধ্যমে সরকার দেশে হিন্দুয়ানী সংস্কৃতি বাস্তবায়ন করতে চায়। আমরা বুকের তাজা রক্ত দিয়ে হলেও তাদের এ অপচেষ্টাকে রুখে দেব, ইনশাআল্লাহ।

বিক্ষোভ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি শেখ ফজলুল করীম মারুফ, সেক্রেটারি জেনারেল শেখ মুহাম্মাদ সাইফুল ইসলাম, জয়েন্ট সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মাদ হাছিবুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম. এমদাদুল্লাহ ফাহাদ, কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণ সম্পাদক নোমান আহমাদ প্রমুখ।