বৃহস্পতিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

মাহফিল সফলের আহবান; বাংলা ভাষা থেকে মুসলমানি শব্দ বাদ দেয়ার চক্রান্ত চলছে: পীর সাহেব চরমোনাই

আইএবি নিউজ: বাংলা ভাষা থেকে আরবী, ফার্সী, তুর্কী প্রভৃতি মুসলমানি শব্দ বাদ দেয়ার যে চক্রান্ত চলছে, তাতে জনগণ উদ্বিগ্ন ও উৎকন্ঠিত। বাংলা ভাষাকে বাঞ্ছিত লক্ষ্যে নিয়ে যেতে হলে জাতীয় ঐক্য ও সংহতি গড়ে তুলতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম।

বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বরিশালের চরমোনাই মাদরাসায় বিভিন্ন পর্যায়ের দায়িত্বশীলদের এক সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, ইসলামই মাতৃভাষাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে। মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন ‘আমি প্রত্যেক রাসুলকেই তার স্বজাতির ভাষাভাষী করে পাঠিয়েছি’। অপরদিকে মহানবী সা. বলেছেন, ‘আমি আরবের শ্রেষ্ঠ বিশুদ্ধভাষী’।

তিনি বলেন, ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসের গৌরবের কথা শুধু বর্ণনা করে আত্মতৃপ্তি পাবার সুযোগ নেই বরং বাংলা ভাষার মর্যাদা রক্ষার জন্য আন্দোলনের যে নজির রয়েছে, সেই আদর্শ গ্রহণের মধ্যেই ভাষা শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের প্রকৃষ্ট উপায়। আজ প্রয়োজন ভাষা আন্দোলনের সেই চেতনাকে উজ্জীবিত করা। অধিকার সমুন্নত রাখার জন্য ভাষা সংগ্রামের অনুপ্রেরণা এবং সেই সাথে ইনসাফ ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার দৃঢ় প্রত্যয় গ্রহণ করতে হবে। ভাষা আন্দোলন অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার অনুশীলনের চেতনায় উজ্জীবিত হওয়ার মধ্যে ভাষা দিবস পালনের স্বার্থকতা।

তিনি আরো বলেন, জনগণ তাদের সমস্ত অস্তিত্ব দিয়ে বাংলাভাষা বিকৃতির অনৈতিক পরিবেশের পীড়ন অনুভব করছেন। নৈতিক চেতনা ও আদর্শবোধ দুর্বল ও অনুশীলনহীন করার যে অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে, তাতে ভাষার মর্যাদা রক্ষা করা সম্ভব নয়।

চরমোনাই পীর বলেন, বাংলাভাষাকে একটি সুনির্দিষ্ট ধারায় প্রবাহিত করা সহজসাধ্য হবে না। কেননা বাংলা ভাষাকে এদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের ধারা প্রতিষ্ঠায় সকল মত ও পথের অনুসারী মানুষের সহযোগিতা প্রয়োজন। বাংলাভাষার নিজস্ব ধারা গঠনের কর্মসূচী বাস্তবায়নের যাত্রা অবারিত করার ক্ষেত্রে সকল দল ও মতের মানষেরই অনুগত থাকার পরিবেশ সৃষ্টি করা অপরিহার্য।

পাশাপাশি পীর সাহেব চরমোনাই ২৪, ২৫, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ চরমোনাইর বার্ষিক মাহফিল সফলের জন্য দেশের ঈমানদার জনতার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।