রবিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

প্রধান বিচারপতি বরাবর মূর্তি অপসারণের দাবীতে ইসলামী আন্দোলন সিলেট জেলার স্মারকলিপি পেশ

আইএবি নিউজ: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সিলেট জেলা ও মহানগরের উদ্যোগে সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণে গ্রিক দেবী থেমিসের মূর্তি অপসারণের দাবীতে আজ ১২ ফেব্রুয়ারী রোববার বাদ জোহর কোর্ট পয়েন্ট থেকে এক বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধান বিচারপ্রতি বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। এ সময় জেলা প্রশাসকের পক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ শহিদুল ইসলাম চৌধুরী স্মারকলিপি গ্রহণ করেন।

স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন- ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সদস্য প্রফেসর ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন খান, সিলেট জেলা সভাপতি নজির আহমদ, সেক্রেটারী মাওলানা ইমাদ উদ্দিন, মহানগর সভাপতি মুফতি মোঃ ফখর উদ্দিন, সেক্রেটারী ডাঃ রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ, সদস্য- সিদ্দিকুর রহমান, ইশা ছাত্র আন্দোলন জেলা সভাপতি মু. সোহেল আহমদ, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন মহানগর সভাপতি আব্দুল হান্নান, প্রমুখ।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে- মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যা অধ্যুষিত বাংলাদেশের গণ-মানুষের আস্থার প্রতীক সর্বোচ্চ বিচারালয় সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণে গ্রিক দেবী থেমিসের মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। বিষয়টি দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমান জনগোষ্ঠীর অন্তরে চরমভাবে আঘাত করেছে। সর্বোচ্চ বিচারালয়ে গ্রিক দেবীর মূর্তি স্থাপনের ফলে দেশের বৃহত্তর ধর্মীয় জনগোষ্ঠীর ধর্মানুভূতিতে আঘাত লাগায় ধর্মপ্রাণ মুসলিম নাগরিকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

এছাড়াও সুপ্রীম কোর্ট প্রাঙ্গণে যেখানে গ্রিক দেবীর মূর্তিটি স্থাপন করা হয়েছে এর পাশেই রয়েছে জাতীয় ঈদগাহ। এ দেশের মুসলিম জাতির সবচেয়ে বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান পবিত্র ঈদের প্রধান জামায়াত এখানেই অনুষ্ঠিত হয়। একটি বিজাতীয় দেবী মূর্তিকে পাশে নিয়ে এদেশের মুসলমানরা পবিত্র ঈদের প্রধান জামায়াতে নামাজ আদায় করবে- তা কল্পনাও করা যায় না।

যারা সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে এবং জাতীয় ঈদগাহের পাশে গ্রিক দেবীর মূর্তি স্থাপন করেছে তারা অবশ্যই একটি অবিবেচকের কাজ করেছে। যে কারণে দেশব্যাপী আজ গণ-মানুষের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। দেশের প্রধান বিচারপতি এবং সর্বোচ্চ আদালতের অভিভাবক হিসেবে আপনি এর দায় কিছুতেই এড়াতে পারেন না।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মাননীয় প্রধান বিচারপতি কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন, অনতিবিলম্বে সুপ্রীমকোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রিক দেবীর মূর্তি অপসারণের কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করে সর্বোচ্চ আদালত এবং প্রধান বিচারপতির ভাবমর্যাদা সুরক্ষা করবেন। অন্যথায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এদেশের ধর্মপ্রাণ তৌহিদী জনতাকে সাথে নিয়ে আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবে।