রবিবার, ১২ মার্চ, ২০১৭

গ্রীক দেবীর মূর্তির বিরুদ্ধে সকলকে জিহাদী চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে প্রতিবাদ করতে হবে: পীর সাহেব চরমোনাই

আইএবি নিউজ: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর আলহাজ মাওলানা মুফতি মুহাম্মদ সৈয়দ রেজাউল করিম পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, শতকরা নব্বই জন মুসলমানের দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সামনে গ্রীক দেবীর মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। অথচ বিধর্মী দেশ আমেরিকার আদালতের সামনে লেখা রয়েছে সর্বকালের সর্বযুগের শ্রেষ্ঠ আইন প্রণেতা মুহাম্মদ রাসূলুল্লাহ সা.। পীর সাহেব বলেন, আফসোস যে দেশে তিন লাখ মসজিদ, ৭০ হাজার মাদরাসা আছে, যে দেশের মানুষ পীর-মুরিদির সাথে জড়িত, যে দেশে আজানের শব্দ শুনে মানুষের ঘুম ভাঙে সেই দেশে আমাদের নবীকে সা. চরিত্রহীন বলে গালি দেয়া হয়। বাংলাদেশের সব কলেমাওয়ালা মুসলমান এক প্লাটফর্মে উঠে এর বিরুদ্ধে যদি কথা বলত, তাহলে হাতেগোনা নাস্তিক-মুরতাদরা বাংলার জমিনে পালানোর পথ পেতো না। পীর সাহেব বলেন, আমাদের জিহাদী মনোভাব নিয়ে প্রতিবাদ করতে হবে। হাদীসের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি আরো বলেন, যে মুসলমানের মধ্যে জিহাদী প্রেরণা নাই, তার মৃত্যু হবে মুনাফিকের মৃত্যু। আর মুনাফিকের স্থান হবে জাহান্নামের সর্ব নিম্নে।

শুক্রবার (১০ মার্চ) সন্ধার পরে মঠবাড়িয়া উপজেলার মিরুখালী স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে মিরুখালী-দাউদখালী মুজাহিদ কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত ওয়াজ মাহফিল ও হালকায়ে জিকিরে পীর সাহেব প্রধান অতিথির বয়ানে একথা বলেন। পিরোজপুর জেলা মুজাহিদ কমিটির সদস্য শফী মাহমুদ খোকন তালুকদারের সভাপতিত্বে মাহফিলে আরো ওয়াজ করেন চরমোনাই ফাজিল মাদরাসার প্রভাষক মাওলানা ছগীর হুসাইন ও মুফাচ্ছেরে কুরআন মাওলানা জিয়াউল হক ফারুকী প্রমুখ।

পীর সাহেব পবিত্র কুরআনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, আল্লাহর রাসূল সা. যা কিছু নিয়ে এসছেন তা পুরাপুরিভাবে আকরে ধরতে হবে এবংযা কিছু নিষেধ করেছেন তা থেকে পুরাপুরিভাবে ফিরে থাকতে হবে। তিনি সকলকে দ্বীনের ভিতর পুরাপুরি প্রবেশ করার আহবান জানান। বয়ান শেষে পীর সাহেব মুনাজাতে দেশ ও মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ কামনা করেন।

একই রাতে উপজেলার তুষখালী হাইস্কুল মাঠে অপর একটি মাহফিলে পীর সাহের বয়ান করার কথা থাকলেও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে বয়ান করতে পারেননি।