সোমবার, ২ জানুয়ারী, ২০১৭

রাষ্ট্রপতির আহবানে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের লক্ষ্যে বঙ্গভবনে যাচ্ছেন পীর সাহেব চরমোনাই

নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের লক্ষ্যে আগামী ৯ জানুয়ারী বিকেলে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সংলাপ অনুষ্ঠিত হবে।

আজ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান সংলাপের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাইর নেতৃত্বে সংলাপে অংশগ্রহণকারী প্রতিনিধি দলের সদস্যরা হলেন- দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিন, অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, আলহাজ আমিনুল ইসলাম,  ইন্জিনিয়ার আশরাফুল আলম ও মাওলানা আহমাদ আবদুল কাউয়ুম।

আগামী ফেব্রুয়ারিতে শেষ হচ্ছে কাজী রকিবউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ। নতুন যে নির্বাচন কমিশন হবে তার অধীনেই ২০১৯ সালে হবে একাদশতম জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সংবিধান অনুযায়ী ইসি গঠনের এখতিয়ার রাষ্ট্রপতির। তবে এজন্য আইন প্রণয়নের কথা সংবিধানে লেখা থাকলেও তা এখনও প্রণীত না হওয়ায় গতবার তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান ইসি নিয়োগের সুপারিশের জন্য একটি সার্চ কমিটি গঠন করেন। বর্তমান রাষ্ট্রপতিও গতবারের মতো সার্চ কমিটি গঠনের মাধ্যমে নতুন ইসি নিয়োগ দেবেন বলে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ইতোমধ্যে জানিয়েছেন।

তৃতীয় বঙ্গভবনের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে রাষ্ট্রপতির চলমান আলোচনা আগামী জানুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত চলতে পারে। জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে আলোচনার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হতে পারে বলে জানান তিনি।

গত ১৮ ডিসেম্বর সংলাপ শুরুর পর বিভিন্ন রাজনৈতিক দল সার্চ কমিটিতে কাদের কাদের রাখা যায় সেই প্রস্তাব দিয়েছে। কয়েকটি দল জরুরী ভিত্তিতে ইসি নিয়োগের আইনের প্রস্তাবও রেখেছে। এই সংলাপে প্রথম দফায় গত ১২ ডিসেম্বর বিএনপিসহ পাঁচটি দলকে আমন্ত্রণ জানায় বঙ্গভবনে। দ্বিতীয় দফায় ২০ ডিসেম্বর আরও ছয়টি দলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। বিএনপির সঙ্গে প্রথম পর্যায়ে ডাক পায় জাতীয় পার্টি, লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এলডিপি), কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ও ওয়ার্কার্স পার্টি। দ্বিতীয় পর্যায়ে ডাক পাওয়া বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) ও ইসলামী ঐক্যজোটের সঙ্গে সংলাপ বৃহস্পতিবার শেষ হয়েছে। এ দফায় আমন্ত্রণ জানানো জাতীয় পার্টির (জেপি) সঙ্গে ২ জানুয়ারি, তরীকত ফেডারেশন ও বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) সঙ্গে ৩ জানুয়ারি আলোচনায় বসবেন রাষ্ট্রপতি।